ধুঁকছে ঐতিহ্যবাহি খাগড়ার কাঁসা শিল্প

আনলকেও ধুঁকছে ঐতিহ্যবাহি খাগড়ার কাঁসা

করোনা ভাইরাস গ্ৰাস করেছে গোটা বিশবকে, বাদ যায়নি ভারতবর্ষও। আর সেই মারণ ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে দেশ জুড়ে লকডাউন চালু করা হয় । কিছু জরুরী পরিষেবা ছাড়া বন্ধ ছিল সবকিছুই। দীর্ঘদিন লকডাউন চলার পর আনলকে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ছাড় মিলেছে ।

কিন্তু ছাড় মিললেও চাহিদা বাড়েনি ভারতবর্ষে খ্যাত বহরমপুরের খাগড়ার কাঁসা শিল্প । এই শিল্পের সাথে জড়িয়ে রয়েছে প্রচুর মানুষ। লকডাউনের ফলে বন্ধ রয়েছে এই শিল্প । ফলে বন্ধ ছিল এই শিল্পের সাথে যুক্ত মানুষদের উপার্জনও। এই সময় মেলেনি কোন সরকারি সাহায্য। মহাজনদের কাছে টাকা নিয়ে সংসার চালাতে হয়েছে তাদের। এখন আনলকে ছাড় মিললেও চাহিদা নেই কাসার, ফলে কাজ পাচ্ছেন কম পরিমাণে।

মহাজনদের টাকা শোধ দিতে ও সংসার চালাতে হিমসিম খেতে হচ্ছে কাসা শিল্পীদের। লকডাউন উঠলেও কবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে, কবে আবার চাঙ্গা হয়ে উঠবে এই শিল্প সেদিকেই তাকিয়ে কাসা শিল্পীরা। কবে স্বাচ্ছন্দে ফিরবে খাগড়ার কাঁসা-শিল্প। সেই দিকেই তাকিয়ে কাঁসা শিল্পীরা।

আগে যেখানে সপ্তাহে ৬ দিন কাজের বরাত পাওয়া যেত সেখানে এইসময় ২ থেকে ৩ দিন কাজ পেতেই হিমসিম খেতে হচ্ছে। নতুন প্রজন্ম এই শিল্প থেকে মুখ ফিরিয়ে নেওয়ায় প্রায় ধংশের মুখে এই ঐতিহ্য বাহি কাসা শিল্প। ছবি ও তথ্য – বিনয় রায়