দিন ভর এক শিক্ষককে তালা বন্দি করে রাখলো গ্রামবাসীরা।
পুরুলিয়া পাড়া থানার ভাটডি গ্রামের ঘটনা।
অভিযোগ ঐ শিক্ষক মশাই নিয়মিত স্কুলে আসেনি, আসলেও তিনি ক্লাস নেয়নি।
যদিও ঐ শিক্ষক সুমিত মুখার্জির দাবি তিনি স্কুলের টিচার্স ইনচার্জ ছিলেন। মাস তিনেক আগে সেই দায়িত্ব দেওয়া হয় বলরাম মালিক নামের অপর এক শিক্ষক কে। সেই থেকেই দুই শিক্ষকের মনোমালিন‍্যে মাঝেপড়ে পড়াশোনায় ব‍্যঘাত ঘটেছে শতাধিক ছাত্র ছাত্রীদের।
ভাটডি প্রাথমিক বিদ‍্যালয়টি 2009 সালে জুনিয়ার হাইস্কুলে পরিনত হয়। বর্তমানে সেখানে দুইজন শিক্ষক ও এক জন শিক্ষিকা রয়েছেন। সম্পতি শিক্ষিকা মেটারনিটি লিভ এ ছুটিতে থাকায় বর্তমানে শিক্ষক রয়েছেন দুই জন। আর ঐ দুই শিক্ষকে মনেয মিল না থাকায় টানা বেশ কয়েকদিন ক্লাস চলেনি নিয়মিত।
গ্রাম বাসিরা জানায় এস আই, ডি আই, বিডিও সমস্ত স্তরেই জানিয়েছি বিশয়টি কিন্তু কোন প্রতিক্রিয়া না মেলায় বাধ‍্যহয়ে ঐ শিক্ষকে তালা বন্ধ করে রেখেছি।
যদিও বর্তমান টি আই সির দায়ীত্বে থাকা শিক্ষক বলরাম মালিক জানান সুমিত বাবঙ বেশ কয়েকদিন ধরেই ক্লাসে নাগিয়ে ফাঁকা ক্লাসরুমে বসে থাকছেন। কিছু বললে গালাগালি করছেন। উর্দ্ধতন কতৃপক্ষকে বিশয়টি জানিয়েছি।
এদিন স্কুল পরিদর্শক কে না পাওয়া যাওয়ায় জেলা শাষক রাহুল মজুমদারকে বিশয়টি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন খোজ নিয়ে দেখছি। একজন শিক্ষককে তালাদিয়ে রাখা উচিৎ হয়নি। আর যদি শিক্ষক মশাইয়ের কোন দোষ দেখি তার ও ব‍্যবস্থা নেওয়া হবে। ছবি ও তথ্য – অনন্যা পাত্র