খুন তৃণমূল প্রাক্তন পঞ্চায়েত প্রধান

খুন হতে হল বিষ্ণুপুরের উলিয়াড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন তৃণমূল প্রধান বাবর আলীকে। অভিযোগ গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কারণেই এই খুন। তবে প্রাক্তন প্রধানের পরিবারের দাবি তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নয় প্রাক্তন সিপিএম হার্মাদরাই খুন করেছে বাবর আলীকে।

গতকাল রাতে ঘটনাটি ঘটে বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুর থানার বালিয়াড়া গ্রামে। উলিয়াড়া গ্রাম পঞ্চায়েত প্রাক্তন তৃণমূল প্রধান ও বর্তমান তৃণমূল প্রধানের বাড়ি বালিয়াড়া গ্রামে। তাদের দুইটি আলাদা গোষ্ঠী রয়েছে। এলাকার শাসন কার হাতে থাকবে এ নিয়ে প্রায়শই চলত দুই গোষ্ঠীর বিবাদ ও ছোটখাটো সংঘর্ষ। গতকাল তার চরম পরিণতি ঘটলো।

গতকাল জনা তিরিশেক দুষ্কৃতী হামলা চালায় বালিয়ারা গ্রামে থাকা বালিয়ারা তৃণমূল কংগ্রেস দলীয় কার্যালয়ে। বোমাবাজি ও ভাঙচুর করা হয় দলীয় অফিসে। এরপর দুষ্কৃতীরা আক্রমণ করে উলিয়াড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রক্তান প্রধান বাড়িতে।বিপদ বুঝে আগেভাগেই বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় বাবর আলি। আশ্রয় নেন পাশের হাজী সাহেবের বাড়িতে। কিন্তু বাড়ি থেকে পালিয়ে গেলেও নিস্তার মেলেনি। দুস্কৃতি হাজী সাহেবের বাড়ির দরজা ভেঙ্গে, ছুরি, বোমা মেরে হত্যা করে বাবর আলীকে এমনটাই অভিযোগ। এরপর রাতভর চলে বোমাবাজি। ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছায় বিষ্ণুপুর থানার পুলিশ। মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বিষ্ণুপুর জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়। গ্রামে উত্তেজনা থাকায় মোতায়েন রয়েছে বিরাট পুলিশবাহিনী। চলছে পুলিশি টহল। এখনো পর্যন্ত এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত সন্দেহে পাঁচজনকে আটক করেছে বিষ্ণুপুর থানার পুলিশ।

অন্যদিকে সিপিআইএমের জেলা সম্পাদক অজিত পতি পুরো ঘটনাটাই অস্বীকার করেন। তার দাবি তাদের কর্মীরা এর সাথে কোনভাবেই জড়িত নয় এটা তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে ফলেই এই ঘটনা ঘটেছে।