নিজের স্ত্রীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে খুন করার অভিযোগ উঠল স্বামীর বিরুদ্ধে। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার হলদিয়া এলাকার ঘটনা কে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ালো। শুক্রবার বিকেলে ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার হলদিয়ার সাঁওতানচকে। মৃত গৃহবধূর নাম লক্ষ্মী দাস (২৬)। স্বামীর নাম বিশ্বজিৎ দাস। লক্ষ্মী পরিচায়িকার কাজ করত। তাদের ১০ বছর ও ৭ বছের দুটি ছেলে রয়েছে। স্থানিয় সূত্রে জানাগিয়েছে, পারিবারিক অশান্তির কারনেই প্রতিনিয়ত লেগে থাকত ঝড়ড়া। শুক্রবার বিকেলে সেই অশান্তি তীব্রতর হয়ে ওঠে। আর সেই সময় বাড়ির মধ্য থাকে হাঁসুয়া দিয়ে স্ত্রী লক্ষ্মীর গলায় কোপ মারে স্বামী বিশ্বজিৎ। তারপর মাটিতে লুটিয়ে পড়ে লক্ষ্মী। পরে প্রতিবেশীরা চুটে এসে দেখতে পায় বাড়ির মধ্য রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে লক্ষ্মী৷ অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরনে তার মৃত্যু হয়।
হলদিয়া থানায় খবর দেওয়া হলে পুলিশ দেহটি উদ্ধার করে হলদিয়া মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যায়। ঘটনার পর উত্তেজিত জনতার মারে জখম হয় বিশ্বজিৎ। তাকে উদ্ধার করে হলদিয়া মহকুমার হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশ। এলাকায় শোকের ছায়া। পরিবারের অভিযোগ, স্বামী- স্ত্রীর অশান্তির কারনে আলাদা থাকতেন। তাদের দুই ছেলে দাদু ও ঠাকুমার কাছে থাকত।

তথ্য ও ছবিঃ খোকন মিশ্র প্রসেনজিৎ রায়