মালদা ১৭ মে ।  বৃদ্ধ বাবা – মাকে মারধর করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বড় ছেলে ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে । ছেলে ও পুত্রবধূর নির্যাতনের অভিযোগের বিষয়ে একাধিকবার হবিবপুর থানায় লিখিত ভাবে জানালেও । পুলিশ প্রয়োজনীয় কোনও ব্যবস্থায় নিচ্ছে না বলে অভিযোগ ওই বৃদ্ধ দম্পতির । তাই বাধ্য হয়ে শুক্রবার মালদা সদর মহকুমাশাসক পার্থ চক্রবর্তীর সঙ্গে দেখা করেন ওই বৃদ্ধ দম্পতি ।পাশাপাশি তাদের নির্যাতন ও বাড়ি ছাড়া করে দেওয়ার ব্যাপারে অভিযোগ জানান । পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন মালদা সদর মহকুমা শাসক।
অত্যাচারের শিকার বৃদ্ধ মহাবীর মন্ডল বলেন,  বড় ও পুত্রবধূর অত্যাচারে আমরা দীর্ঘদিন আগেই ছোট ছেলের কাছে চলে যাই । ও চেন্নাইয়ে থাকে । কিন্তু সেখানকার ভাষা এবং থাকতে অসুবিধা হচ্ছিল।  বৃদ্ধকালে নিজের ভিটে ছেড়ে থাকতে চাই নি আমরা । তাই নিজের ভিটে হবিবপুর গ্রামের বাড়িতে চলে আসি । কিন্তু সেখানে বড় ছেলে ও তার স্ত্রী যেভাবে অত্যাচার শুরু করেছে তাতে কোনরকমে থাকা যাচ্ছে না।  প্রতিদিনই আমাকে এবং আমার স্ত্রীকে মারধর করা হচ্ছে।  বাড়ি থেকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে তাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে । এমনকি প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হচ্ছে।  পুলিশের কাছে অভিযোগ জানিয়েছি।  পুলিশ প্রথমে অভিযোগ পেয়ে আমাদের বাড়িতে থাকার ব্যবস্থা করে দায় এড়িয়েছে। কিন্তু বড় ছেলে ও তার স্ত্রীর অত্যাচার ক্রমাগত বেড়েই চলেছে । ওরা আবারও আমাদের বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছে । এই অবস্থায় প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছি।
হবিবপুর থানার পুলিশ জানিয়ে কোন লাভ হয়নি বেশ কয়েকবার জানানো সত্ত্বেও পুলিশ কোন ব্যবস্থা নেয়নি আমার বড় ছেলের বৌমার দাদারা এই এলাকার মাস্তান হিসেবে চিহ্নিত এর ভয়ে গ্রামের মানুষ কোন কিছু বলতে চায় না একাধিকবার গ্রামের মানুষ বসে মিটিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলেও তারা গায়ের জোরে মেটানোর চেষ্টা করে না । প্রতিদিনই জুলুমবাজি নানা রকমের চাহিদা পরিপূর্ণ না করলে চলে মারধর। ছবি ও তথ্য – জয়দীপ দাস