উত্তরাখন্ড হাইকোর্টের নির্দেশে এবার স্বস্তি পেল অভয়ারণ্যের জীবজন্তুরা।।

২০১২ সালে উত্তরাখন্ডের রামনগরের হিমালয়ান যুব গ্রামীন বিকাশ সংস্থা নামের একটি এন জি ও-র করা জনস্বার্থ মামলার রায় দিতে গিয়ে উত্তরাখন্ডের হাইকোর্টের বিচারপতি রাজীব শর্মা ও লোকপাল সিংহ যুগান্তকারী নির্দেশ দিল সরকার ও প্রশাসন কে। মামলায় বলা হয়েছে জিম্ করবেট ও রাজাজী জাতীয় অভয়ারণ্যে হাতির পিঠে চড়ে বহু পর্যটক অরণ্যে ঘুরে বেড়ান। সরকারি ও বেসরকারি বহু সংস্থা এই ব্যাবসায় যুক্ত। কিন্ত তারা হাতিদের দিয়ে অমানবিক ব্যাবসা করে কিন্তু তাদের যথাযথভাবে পালন করে না। নির্দেশে এমনও বলা হয়েছে যে প্রতিদিন তাদের খাওয়ার ও পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখার একটি তালিকা প্রশাসনিক মহলে জমা দিতে হবে। না হলে হাতিগুলিকে অরণ্যে নিয়ে গিয়ে ছেড়ে দেওয়া হবে।
এই রায় দানের সময় বিচারপতি এও বলেন যে অত্যধিক বেশী পরিমানে গাড়ী করে জঙ্গল সাফারি করার জন্য জীবজন্তুদের প্রাকৃতিক ভারসাম্য বজায় থাকছে না। এবার থেকে প্রতিদিন ১০০টার বেশী গাড়ী যেন না চলে। কোনও প্রাইভেট গাড়ীকে জঙ্গলে ঢুকতে দেওয়া যাবে না। জিম্ করবেট ও রাজাজী জাতীয় অভয়ারণ্যের কর্তৃপক্ষ এই রায় নিয়ে পড়েছেন বিপদে। তিন মাসের মধ্যে সরকারকে এর বিস্তারিত জমা দিতে বলা হয়েছে। ৩০শে জুন থেকে বর্ষার জন্য সমস্ত জঙ্গলগুলি বন্ধ হয়ে যায়। এই রায়
নিয়ে আগামী দিনে সরকার কি নির্দেশ দেন সেটাই এখন দেখার বিষয়। পর্যটকরা অবশ্য হাইকোর্টের নির্দেশে রীতিমতো হতাশ।

শান্তনু সাহাঃ- সাউথ বেঙ্গল ডেস্ক।।